রবিবার
২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং
৭ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
২৩শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী

১৭ বীমা কোম্পানির পেটে ১৭৮১ কোটি টাকা: তদন্তে দুদক

প্রতিবেদক:  Shomoy News 24    প্রকাশের সময়: 22/06/2016  12:13 AM

19739_f3

অর্থনীতি ডেস্ক, সময় নিউজ ২৪ ডটনেট: অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা ব্যয়ের নামে গ্রাহকদের ১ হাজার ৭৮১ কোটি টাকা লোপাট করেছে ১৭টি বীমা কোম্পানি। এমন অভিযোগ আমলে নিয়ে এসব কোম্পানির বিরুদ্ধে অনুসন্ধানে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন। মঙ্গলবার দুদকের উপ-পরিচালক জালাল উদ্দিন ও সহকারী পরিচালক আনোয়ার হোসেনের সমন্বয়ে অনুসন্ধান টিম গঠন করেছে সংস্থাটি। দুদকের কাছে দেয়া অভিযোগে বলা হয়েছে, বীমা কোম্পানিগুলোর দাখিল করা হিসাব অনুসারে ২০০৯ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত সরকারি বেসরকারি ১৭টি জীবন বীমা কোম্পানি ব্যয় করেছে ১ হাজার ৯৭৮ কোটি ৪৩ লাখ টাকা। যার মধ্যে গ্রাহকের অংশ ১ হাজার ৭৮০ কোটি ৫৯ লাখ টাকা, যা মোট টাকার ৯০ শতাংশ। অতিরিক্ত এই ব্যয়কে অবৈধ বলছে বীমা নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইডিআরএ। বীমা নিয়ন্ত্রক সংস্থার মতে, অবৈধ ব্যয়ের কারণেই অনেক কোম্পানি চরম আর্থিক সংকটে পড়েছে। সময়মতো গ্রাহকদের দাবি পরিশোধ করতে পারছে না। ফলে গ্রাহকদের মাঝে সৃষ্টি হয়েছে চরম অনাস্থা। গ্রাম-গঞ্জের গ্রাহকরা দাবির টাকা না পাওয়ায় বীমা নিয়েই বিরূপ ধারণা পোষণ করছেন। এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে গোটা বীমাখাতের ওপর। অভিযোগে আরো বলা হয়, বীমা নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছে কোম্পানিগুলোর দাখিল করা তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা যায়, সরকারি-বেসরকারি পুরনো ১৭টি জীবন বীমা কোম্পানির মধ্যে অবৈধ ব্যয়ের শীর্ষে রয়েছে ৭টি  কোম্পানি। এই ৭ কোম্পানির মোট অবৈধ ব্যয় ১ হাজার ৩৯৬ কোটি ২৮ লাখ টাকা। যা মোট অবৈধ ব্যয়ের ৭০.৬ শতাংশ। এর মধ্যে গ্রাহকের রয়েছে ১ হাজার ২৫৬  কোটি ১৮ লাখ টাকা। বেসরকারি বীমা কোম্পানিগুলোর মধ্যে অবৈধ ব্যয় সবচেয়ে কম করেছে ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স। কোম্পানিটি গত ৭ বছরে অবৈধ ব্যয় করেছে ২১ কোটি ৩৭ লাখ টাকা। যা মোট প্রিমিয়াম আয়ের ১.৪৯ শতাংশ। এই কোম্পানি গত ৭ বছরে মোট প্রিমিয়াম আয় করে ৪ হাজার ৬৯৭ কোটি ৬৩ লাখ। এদিকে অবৈধ ব্যয়ের শীর্ষে রয়েছে পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্স। এই কোম্পানিটি ব্যয় করেছে ২৯৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। এছাড়া জীবন বীমা করপোরেশন অবৈধ ব্যয় করেছে ২৭৬ কোটি ৭৬ লাখ টাকা, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ২০০ কোটি ৫১ লাখ টাকা, পদ্মা ইসলামী লাইফ ১৬৬ কোটি ৮৩ লাখ টাকা, গোল্ডেন লাইফ ১৬৫ কোটি ২৫ লাখ টাকা, সন্ধানী লাইফ ১৫৫  কোটি ৫৯ লাখ টাকা, প্রগতি লাইফ ১৪৬ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। অন্যান্য  কোম্পানিগুলোর মধ্যে সানফ্লাওয়ার লাইফ ৯১ কোটি ২৭ লাখ টাকা, সানলাইফ ৯০ কোটি ৭০ লাখ টাকা, প্রাইম ইসলামী লাইফ ৭৪ কোটি ৪১ লাখ টাকা, মেঘনা লাইফ ৬৯  কোটি ৫২ লাখ টাকা, ডেল্টা লাইফ ৫৫ কোটি ৩২ লাখ টাকা, রূপালী লাইফ ৫০  কোটি ২৩ লাখ টাকা, হোমল্যান্ড লাইফ ৪৮ কোটি ৮ লাখ টাকা, প্রোগ্রেসিভ লাইফ ৪২ কোটি ৬৩ লাখ টাকা, বায়রা লাইফ ৩৮ কোটি ৬২ লাখ টাকা ব্যয় করেছে। এসব তথ্য দুদকে অভিযোগ আকারে জমা হয়েছে। দুদক আমলে নিয়ে অনুসন্ধান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আগামী ৩০ কর্মদিবসের মধ্যে অনুসন্ধান শেষ করা হবে বলে মানবজমিনকে জানিয়েছেন দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য। অনুসন্ধানে সত্যতা মিললেই এসব কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করবে দুদক।

সূত্র: মানবজমিন।

Site Develop by : Shekh Mostafizur Rahman Faysal